অর্থনীতিতে শীর্ষে জায়গা নিতে মরিয়া তুরস্ক

ইজাব টিভি ডেস্কঃ করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালে বিপর্যস্ত ছিল তুরস্কের অর্থনীতি। কিন্তু বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষ ১০ অর্থনীতিতে নিজেদের জায়গা করে নিতে বড় বিনিয়োগ ও প্রকল্প নিয়ে এগোচ্ছে তুরস্ক। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শীর্ষ অর্থনীতি হওয়ার বাসনার কথা শোনাচ্ছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। দেশের প্রবৃদ্ধি ভালো অবস্থানে নিতে বহুমুখী উদ্যোগ নিয়ে কাজ করছে দেশটির সরকার। সম্প্রতি দেশটির মালাতিয়া প্রদেশে একটি সেতু উদ্বোধন করে এসব কথা জানান দেশটির প্রেসিডেন্ট। চলতি বছর (২০২১) ৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য রয়েছে তুরস্ক সরকারের। তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, দেশকে শীর্ষ ১০-এ নিতে বৃহত্তম বিনিয়োগগুলোকে বৃহত্তম প্রকল্পে রূপান্তরের কাজ চলছে। পৃথিবীতে যত মেগাপ্রজেক্টের কাজ চলছে, তার অর্ধেকেরও বেশি বাস্তবায়ন হচ্ছে তুরস্কে। পাশাপাশি মহাকাশ প্রযুক্তি, হাইটেক আর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে তুরস্কের কাজের তুলনা হয় না বলেও মনে করেন তিনি।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে দেশটির মূল্যস্ফীতি ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছিল। সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গিয়েছিল নিত্যপণ্য। ঐ সময় মানুষ চাল আর পাস্তা কিনে মজুত করেছিল। জ্বালানি তেল আর সারের দাম বাড়ায় দেশটিতে বেড়েছে কৃষিকাজে খরচ। বৈরী আবহাওয়ায় ব্যাহত হয়েছে উত্পাদন। তুরস্কের মুদ্রা লিরার মান কমায় গেল বছর আমদানি খরচ পৌঁছেছিল ৯০০ কোটি ডলারে। করোনার কারণে ২০২০ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে ১০ শতাংশ সংকুচিত হয় দেশটির অর্থনীতি। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরে এসে কিছুটা স্থিতিশীল হয় তুরস্কের অর্থনীতি। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বলছে, চলতি বছর তুরস্কের অর্থনীতির ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে। করোনার ক্ষতিও কাটিয়ে উঠবে দেশটি। চলতি বছর বাজেট ঘাটতি সাড়ে ৩ শতাংশে নেমে আসবে বলেও পূর্বাভাস দিয়েছে আইএমএফ। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের প্রথমে দেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে নজর দেওয়া প্রয়োজন।